Home / অন্যান্য / এই পাঁচ রাশির মেয়েদের ভুলেও ঘাঁটাবেন না

এই পাঁচ রাশির মেয়েদের ভুলেও ঘাঁটাবেন না

ইভটিজিংয়ের জন্য দায়ী কি শুধুই যুবসমাজ?

এমনিতেই মেয়েদের ঘাঁটানো কোনও কাজের কথা নয়। অতি সংবেদী নারীকুল সম্পর্কে বঙ্কিমচন্দ্র যতই ‘অর্ধেক বই পুরা’ না দেখে থাকুন, এঁরা কিন্তু একেবারেই আদি শক্তির সাক্ষাৎ রূপ।
জয় গোস্বামীর কবিতা অনুসরণ করেই বলা যায়, রাগ কখন তাঁদের মাথায় চড়ে আর কখন তাঁরা রাগের মাথায় চড়ে থাকেন, বলা মুশকিল। তাই পাশ্চাত্য জ্যোতিষ জানাচ্ছে, এই পাঁচ রাশির মহিলাদের না ঘাঁটানোই মঙ্গল।

• বৃষ (জন্মদিন ২০ এপ্রিল-২০ মে): এই রাশির জাতিকারা অত্যন্ত জেদি। সমঝোতায় তাঁদের বিশ্বাসই নেই। একবার খেপলে তাঁদের ঠাণ্ডা করা দুরূহ। তবে সময় দিলে তাঁরা শান্ত হয়ে যান। মনে ক্ষোভ জমলে তাঁরা সরব হয়ে ওঠেন। তাঁদের ধৈর্য একটু কম। কেউ রাগিয়ে দিলে সর্বনাশ!

• সিংহ (জন্মদিন জুলাই ২৩-অগস্ট ২১): এই রাশির জাতিকাদের চরিত্রে নাটকীয়তা বেশি। তাঁরা প্রভাবিত করতে চান সবাইকেই। মাথায় রাগ চাপলে তাঁরা নিজের অবস্থান থেকে এক চুলও নড়েন না। তর্কে এঁরা খুবই দড়। এমনিতেই এঁরা মাথা গরম। রেগে গেলে প্রতিপক্ষকে অপমান করতে একটুও পিছপা হন না। অনেক সময়ে রাগের প্রকাশও হয় সাংঘাতিক।

• বৃশ্চিক (জন্মদিন অক্টোবর ২৩- নভেম্বর ২১): এই রাশির কন্যরা মনে করেন তাঁরাই ঠিক। এই নিয়ে জেদাজেদি প্রায়ই ঘটতে পারে। এঁরা আবার রাগ পুষে রাখেন। শোধ না তোলা পর্যন্ত এঁরা শান্তি পান না। রাগের সময়ে টিপ্পনি কাটা এঁদের প্রিয় অভ্যেস। স্বাভাবিক অবস্থায় শান্তশিষ্ট হলেও রেগে গেলে এঁরা কোথায় গিয়ে দাঁড়াতে পারেন, তা বলা মুশকিল।

• ধনু (জন্মদিন নভেম্বর ২২-ডিসেম্বর ২১): এঁরা উদারচেতা। কিন্তু মাথায় রাগ চাপলে মুখে কিছু আটকায় না এঁদের। কিন্তু রাগ পড়লে এঁরা একেবারেই পানি। কৃতকর্মের জন্য ক্ষমাও চেয়ে নেন চটপট।

• মেষ (জন্মদিন ডিসেম্বর ২২-জানুয়ারি ১৯): এঁদের মেজাজ এমনিতে ঠাণ্ডা। সহজে আবেগ প্রকাশ করেন না। কিন্তু একবার যদি রাগ চাপে, তা হলে এঁদের সামলানো দায় হয়ে পড়ে। তখন কাকে দোষারোপ করছেন, কেন করছেন তা মাথায় থাকে না।
সূত্র: এবেলা

ছেলে এবং মেয়ে শিশুর জন্য কিছু সুন্দর নাম শেয়ার করে রাখুন

Loading...

Check Also

জাদুর প্রভাব থেকে মুক্তি লাভের উপায়

হজরত ওয়াহাব রহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, যে ব্যক্তি জাদু-টোনার শিকার হয়, তাঁকে জাদুর প্রভাব থেকে মুক্ত …

আংকেল আমাকে স্ত্রীর মতো ব্যবহার করে…এখন!

আমার প্রেমিক ছিলো, ৫ বছরের সম্পর্ক। এরপর সে ইউ এস এ চলে গিয়ে আর যোগাযোগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *